বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ০৯:২৮ অপরাহ্ন

অগ্রহণযোগ্য  এমপিরা এবার আ.লীগের টিকিট পাচ্ছেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২৩

ওয়াশিংটননিউজ,ঢাকা, ২৭ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার,২০২৩: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ অজনপ্রিয় সংসদ সদস্যদের কুক্ষিগত করে আসন্ন সাধারণ নির্বাচনে নিজেদের সেরা প্রার্থী খুঁজে বের করতে বেশ কিছু জরিপ চালাচ্ছে।

অভ্যন্তরীণ সূত্র জানায়, সিটি নির্বাচনে সাম্প্রতিক মনোনয়ন একটি উদাহরণ হয়ে দাঁড়িয়েছে কারণ দলের সভাপতি আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বর্তমান মেয়রদের বাদ দিয়ে গাজীপুর ও বরিশালে দুই নতুন মুখকে মনোনয়ন দিয়েছেন।

দলের বদনাম করার জন্য বরিশালের মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ, যিনি শেখ হাসিনার ভাগ্নে এবং গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকেও দ্বারস্থ করা হয়েছে বলে, তারা জানান।

অভ্যন্তরীণ সূত্রে জানা গেছে, সিটি নির্বাচনের মনোনয়নের মাধ্যমে দলের সভাপতি মূলত এমন বার্তা দিয়েছেন যে কারও টিকিট এখনো নিশ্চিত হয়নি।
যারা জনগণের জন্য কাজ করেন, নিজ নিজ এলাকায় দলে ও জনগণের কাছে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে তারাই আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার টিকিট পেতে পারেন বলে জানান তারা।

শেখ হাসিনা গত সপ্তাহে দলের এক যৌথ সভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তার অনুগতদের একে অপরের বিরুদ্ধে কথা বলা এবং তৃণমূলে গ্রুপিং বন্ধ করতে বলেছেন।

“আমি মনোনয়ন দেব। সুতরাং, একে অপরের বিরুদ্ধে জিহ্বা বন্ধ করুন। আপনার এলাকায় কাজ করুন এবং সরকারের সাফল্যের গল্প তুলে ধরুন,” তিনি বলেছিলেন।

আ.লীগ নেতারা জানান, অপকর্মসহ বিভিন্নভাবে দলের বদনাম করা কিছু বর্তমান মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের এবার টিকিট নাও দেওয়া হতে পারে।

“দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাস্তব চিত্র পেতে একাধিক জরিপ চালিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমান আইন প্রণেতারা যারা অজনপ্রিয় বা অগ্রহণযোগ্য  হয়ে উঠেছেন এবং দলের জন্য বদনাম অর্জন করেছেন তাদের বাদ দেওয়া হতে পারে বলে ,” নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সিনিয়র নেতা এ কথা বলেন।

অভ্যন্তরীণ সূত্র জানায়, কয়েক ডজন আইনপ্রণেতা বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত। স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে তৃণমূলে নেতাকর্মী ও নিবেদিতপ্রাণ কর্মীদের মধ্যে দূরত্বও তৈরি করেছে তারা।

নেতা বলেন, দল যোগ্য, নিবেদিতপ্রাণ, সৎ এবং জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থীদের খোঁজ করছে।

অভ্যন্তরীণ সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, আ.লীগ সভাপতি কিছু স্বনামধন্য দেশি-বিদেশি সংগঠনের মাধ্যমে জরিপ চালিয়ে যাচ্ছেন।

দলের সভাপতি ইতিমধ্যে বলেছেন, জরিপের ভিত্তিতেই মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তারা।আগামী নির্বাচন একটি চ্যালেঞ্জিং উল্লেখ করে শেখ হাসিনা ইতিমধ্যেই তার দলের নেতাদের নিয়মিত নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকা পরিদর্শন করার এবং ভোটারদের নিজেদের সক্ষমতা দিয়ে ভোটের প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে উঠতে নির্দেশ দিয়েছেন। “প্রত্যেক বর্তমান সংসদ সদস্যের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এবার শুধু চেহারা বিচার করে নমিনেশন দেওয়া হবে না, যারা নিজ এলাকায় যোগ্য ও জনপ্রিয় তাদের টিকিট দেওয়া হবে,” সম্প্রতি বলেন তিনি।

আগামী বছরের জানুয়ারিতে আগামী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সব রাজনৈতিক দলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। অবাধ, সুষ্ঠু ও বিশ্বাসযোগ্যভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে বলেও এতে বলা হয়েছে।

ইসির আশ্বাস সত্ত্বেও, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) সহ কিছু বিরোধী দল বর্তমান ইসি এবং সরকারের অধীনে যে কোনও নির্বাচন বয়কট করতে আগ্রহী।

তারা সরকারকে নির্বাচনের বিশ্বাসযোগ্য তদারকির জন্য বাতিল করা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধান পুনর্বহাল করতে বলছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ