বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন

মুক্তিযুদ্ধের পাকিস্তানি গণহত্যার স্বীকৃতি বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৪ মে, ২০২৩

ওয়াশিংটননিউজ, ঢাকা,২৪ মে,বুধবার,২০২৩: ইউরোপীয় বাংলাদেশ ফোরাম (ইবিএফ) ২২ মে সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার স্বীকৃতি বিষয়ক একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করে। রাজনীতিবিদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সিনিয়র গবেষক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং মানবাধিকার কর্মীদের সমন্বয়ে সফররত ইউরোপীয় ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং প্রতিনিধি দলের সদস্যরা এতে বক্তব্য রাখেন।

সম্মেলনে সফররত ইউরোপীয় প্রতিনিধিবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক, সাংস্কৃতিক কর্মী এবং সম্প্রদায়ের নেতারা ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার বৈশ্বিক স্বীকৃতি না পাওয়া পর্যন্ত নিরলসভাবে কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
EBF-এর উভয় অংশীদার প্রতিষ্ঠান আম্র একাত্তর এবং Projonmo 71-এর সহযোগিতায় সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোআক্তারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং সভাপতিত্ব করেন আমড়া একাত্তরের চেয়ারপারসন মাহবুব জামান, যিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউরোপীয় প্রতিনিধি দলের প্রধান সাবেক ডাচ সংসদ সদস্য হ্যারি ভ্যান বোমেল, ব্রিটিশ রাজনৈতিক বিশ্লেষক ক্রিস ব্ল্যাকবার্ন, অধ্যাপক ডআমস্টারডাম ইউনিভার্সিটির অ্যান্টনি হোলস্যাগ, আমরা একাত্তরের প্রধান সমন্বয়কারী হিলাল ফায়াজী, বিকাশ চৌধুরী বড়ুয়া এবং আনসার আহমেদ উল্লাহ, উভয়ই ইবিএফ থেকে। এছাড়া সেক্যুলার ফোরামের সভাপতি শাহরিয়ার কবির, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, গণহত্যা গবেষক লেফটেন্যান্ট কর্নেল বীরপ্রতীক সাজ্জাদ জহির, মুক্তিযোদ্ধা ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সাবেক প্রধান হারুন হাবিব, চেয়ারম্যান ট্রাস্টি বোর্ড ১৯৭১ জেনোসাইড অ্যান্ড টর্চার আর্মিজাদুঘর, ঢাকা অধ্যাপক মুনতাসির মামুন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচালক অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন, জুলিয়ান ফ্রান্সিসে বসবাসকারী ব্রিটিশ মানবাধিকার কর্মী এবং লেখক ও ভিকটিম পরিবারের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার প্রদীপ কুমার দত্ত। তাওহীদ রেজা নূর, গণহত্যা গবেষক এবং projonmo 71 এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক এবং ভিকটিম পরিবারের একজন সদস্য যুক্তরাষ্ট্র থেকে জুমের মাধ্যমে সভায় বক্তব্য রাখেন। এটি পরিচালনা করেন আম্র একাত্তরের বোর্ড সদস্য মৃণাল সরকার।
সম্মেলনে বাংলাদেশ, নেদারল্যান্ডস এবং যুক্তরাজ্যের ব্যাপক প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া স্থান পেয়েছে। হল জ্যামপ্যাক ছিল এবং অংশগ্রহণকারীদের জন্য কোন জায়গা ছিল না। অডিটোরিয়ামে আর কোনো জায়গা খালি না থাকায় অনেক অংশগ্রহণকারীকে প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একটি ভাল সংখ্যক ছাত্রও দেখা গেছে।
সম্মেলনে ইউরোপীয় ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং দলের নেতা ডাচ পার্লামেন্টের সাবেক সদস্য হ্যারি ভ্যান বোমেল বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যার বৈশ্বিক স্বীকৃতি বাংলাদেশ পাবেতিনি আরো বলেন, আর্মেনিয়ান গণহত্যার বৈশ্বিক স্বীকৃতি পেতে ১০০ বছর লেগে গেলেও বাংলাদেশের গণহত্যার ক্ষেত্রে এত বেশি সময় লাগবে না বলে আশা করি। হ্যারি বলল, ‘আমরা কয়েক বছরের মধ্যে এটি পেতে চাই, এমনকি কয়েক দশকও নয়’।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর মোঃ আকতারুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছিল গণহত্যার কেন্দ্রবিন্দু এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকরা গণহত্যার প্রথম শিকার হন। সম্মেলনের আয়োজক ও অবদানকারীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি আন্তরিকভাবে অঙ্গীকার করেন যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সর্বদা তাদের পাশে থাকবে এবং একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি অর্জনে সহযোগিতা করবে।
ইবিএফ নেতৃবৃন্দ গণহত্যা সম্পর্কে বিশ্ব সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নৃশংসতার শিকারদের পাশে দাঁড়ানোর দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
গণহত্যা গবেষক ও প্রজন্ম ৭১-এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক তাওহীদ রেজা নূর বলেন, গণহত্যার স্বীকৃতি ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে কাজ করছে প্রজন্ম ৭১।
“১৯৪৮ সালের গণহত্যার কথোপকথন অনুসারে, গণহত্যা মানে একটি সুশৃঙ্খল পরিকল্পনার সাথে লক্ষ্যবস্তু বা সম্প্রদায়ের একটি লক্ষ্যযুক্ত গোষ্ঠীকে ধ্বংস করা, ক্ষতি করা এবং বিকৃত করাগণহত্যা গবেষক প্রদীপ কুমার দত্ত বলেছেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত গণহত্যা ছিল পরিকল্পিতভাবে বাঙালি হত্যা।
প্রেসক্লাবে প্রেস কনফারেন্স
এর আগে ২১ মে ২০২৩ তারিখে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে সফররত ইউরোপীয় প্রতিনিধিদলের ‘মিট দ্য প্রেস’ শীর্ষক একটি অনুষ্ঠান ছিল। ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বর্তমান সংসদ সদস্য সুবাস দত্ত। এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সফররত ইউরোপীয় প্রতিনিধিদলের নেতা ডাচ পার্লামেন্টের সাবেক সদস্য হ্যারি ভ্যান বোমেল, গণহত্যা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডঅ্যান্টনি হোলস্যাগ, ব্রিটিশ রাজনৈতিক বিশ্লেষক ক্রিস ব্ল্যাকবার্ন, ইবিএফ নেতা বিকাশ চৌধুরী বড়ুয়া এবং আনসার আহমেদ উল্লাহ, আমরা একাত্তরের প্রধান সমন্বয়কারী হিলাল ফায়াজী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আমড়া একাত্তরের চেয়ারপারসন মাহবুব জামান।
এটি প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক পাশাপাশি লাইনের পাশাপাশি প্রেসের সদস্যদের সাথে জ্যাম্পাকড হল।

টিভি টক শো
সন্ধ্যায় শীর্ষস্থানীয় টিভি চ্যানেল এটিএন বাংলায় একটি টিভি টকশো ছিল। হ্যারি ভ্যান বোমেল, অধ্যাপক অ্যান্টোনি হোলসল্যাগ, আনসার আহমেদ উল্লাহ, ক্রিস ব্ল্যাকবার্ন ঢাকার স্টুডিওতে টকশোতে অংশ নেন, এবং প্রোজন একাত্তর নেতা আসিফ মুনির কার্যত যোগ দেন। এক ঘণ্টার দ্বি-ভাষিক টক শোটি ২২ মে ২০২৩ রাত ১০: ৫০ টায় সম্প্রচার করা হয়েছিল। এটি উপস্থাপনা করেন প্রখ্যাত সাংবাদিক জে.আই.মামুন।

ডেইলি স্টারে সাক্ষাৎকার
টিভি টক শো শেষে ঢাকায় ডেইলি স্টার কার্যালয়ে সফররত প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠিত হয়। সাক্ষাৎকারটি এখনো প্রকাশ করা হয়নি। এটি ছিল প্রতিনিধিদলের প্রধান হ্যারি ভ্যান বোমেলের একটি সাক্ষাৎকার, যখন অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
প্রথম দুই দিনব্যাপী কর্মসূচী খুবই সফল ছিল। অংশগ্রহণকারী এবং প্রেস সদস্যদের উপস্থিতি ছিল খুবই চিত্তাকর্ষক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ